1. azimazim0003@gmail.com : adnan sany : adnan sany
  2. bullumm12@gmail.com : Suff Reporter : Suff Reporter
  3. bddhakanews@gmail.com : Stuff Repoter : Stuff Repoter
  4. myboss8090@gmail.com : News Media : News Media
  5. admin@dhakanews.com : Stuff_Editor :
  6. rezaulkhan67@gmail.com : SUFF REPORTER : SUFF REPORTER
বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:৫৬ পূর্বাহ্ন

দু’হাজার বছর পর হদিশ পাওয়া মিশরীয় জনপদে যা পাওয়া গেল

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২২
  • ১৫৫ Time View

গমগমে এক শহর। রকমা'রি পসরা সাজিয়ে বসে আছে দোকানিরা। রাজপথের দুপাশে সুদৃশ্য সব অট্টালিকা। বিলাস ব্যসনের উপাদানেরও কমতি নেই। বন্দরনগরীটিতে বিদেশি বণিকদের আনাগোনা লেগেই থাকে যে। তাদের মনোরঞ্জনের উপাদান চাই তো! কিন্তু এমনই প্রাণপ্রাচুর্যে ভরা নগরীটি একদিন আচমকাই উধাও হয়ে গেল। যেন ভোজবাজির মতো। প্রাচীন মিশরের পুরাণে জানা যায় হেরাক্লিয়ন নামে সেই নগরের কথা। কিন্তু কীভাবে হারিয়ে গিয়েছিল সেই সমৃ''দ্ধ শহরটি?
দু’হাজার বছরের পুরোনো জনপদ
দেড় হাজার বছর আগে গ্রিক ইতিহাসবিদ হেরোডোটাসের বর্ণনায় এই নগরীর কথা প্রথম জানা যায়। তার মতে হেলেনকে নিয়ে স্পার্টা থেকে পালানোর সময়ে ট্রয়ের রাজপুত্র প্যারিস প্রথমে নীল নদের মোহনায় এই হেরাক্লিয়ন বন্দরে এসেছিলেন। গ্রিক ঐতিহাসিকদের মতে, মিশরের আলেকজান্দ্রিয়া নগরের উত্তর-পূর্বে গড়ে উঠেছিল হেরাক্লিয়ন, যা সেকালে মিশরের অন্যতম প্রধান বন্দর ছিল। নাগরিকদের বিশ্বা'স ছিল, হেরাক্লিয়নের সুখ সমৃ''দ্ধির পেছনে আছে বন্যা ও শস্যফলনের দেবতা হাপির আশীর্বাদ।

মূলত গ্রিস ও দক্ষিণ-পূর্ব ইউরোপের অন্যান্য অঞ্চলের সঙ্গে বাণিজ্যিক আ'দানপ্রদানের জন্য ব্যবহৃত 'হত এই বন্দর। কিন্তু খ্রিস্টপূর্ব চতুর্থ শতাব্দীর কোনও এক সময় এই শহর ভূমধ্যসাগরের গ'র্ভে তলিয়ে যায় বলেই মনে করেন ঐতিহাসিকেরা। কারও কারও মতে, কোনও বিধ্বং'সী ভূমিকম্পের জেরেও ঘটতে পারে এমন ঘটনা। এই হারিয়ে যাওয়া শহরের কথা ক্রমে ক্রমে ভুলেই গিয়েছিল সকলে। পুরনো পুথিতে এই শহরের উল্লেখ দেখে ধরে নেয়া হয়েছিল, হারিয়ে যাওয়া শহর এল-ডোরাডো বা আট'লান্টিসের মতো হেরাক্লিয়নও হয়তো এক রূপকথা মাত্র।

কিন্তু ১৯৯৮ সালে বিখ্যাত ফরাসি প্রত্নতাত্ত্'বিক ফ্র্যাঙ্ক গু'ডির নেতৃত্বে একদল গবেষক ভূমধ্যসাগরের নীচে ফরাসি সম্রাট নেপোলিয়নের একটি যু'দ্ধ জাহাজের খোঁজ করছিলেন। মিশরের উপকূলবর্তী সাগরের নিচে আশ্চর্যভাবে এক প্রত্ন শহরের নিদর্শন খুঁজে পান তারা। এই সূত্র ধরেই ২০০০ সাল নাগাদ ইউরোপিয়ান ইনিস্টিটিউট ফর আন্ডারওয়াটার আর্কিওলজির উদ্যোগে ও মিশরীয় পুরাতত্ত্ব কাউন্সিলের সহায়তায় গঠন করা হয় একটি দল। এই দলের নেতৃত্বেও ছিলেন প্রত্নতাত্ত্'বিক ফ্র্যাঙ্ক গু'ডি।

টানা ১৩ বছর ধরে পানির নিচে সন্ধান চালিয়ে তারা উ'দ্ধার করেন দুশোর বেশি বিভিন্ন ধরনের মূর্তি, হায়ারোগ্লিফিক শিলালিপি, ধাতব জিনিসপত্র, মুদ্রা ও ফারাওদের ব্যবহৃত স্বর্ণালংকার। সেইসব নিয়ে গবেষণা করে ঐতিহাসিকেরা নিশ্চিত হন, তলিয়ে যাওয়া এই শহরটিই পুরাণবর্ণিত সেই হারিয়ে যাওয়া বন্দর-নগরী হেরাক্লিয়ন বা থনিস, গ্রিক ঐতিহাসিকেরা যার নাম দিয়েছিলেন সমুদ্রের প্রবেশদ্বার। সূত্র: ডেইলি মেইল।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Cialis
© All rights reserved © 2020 by Dhakanews.com
Theme Customized By BreakingNews