1. azimazim0003@gmail.com : adnan sany : adnan sany
  2. bullumm12@gmail.com : Suff Reporter : Suff Reporter
  3. bddhakanews@gmail.com : Stuff Repoter : Stuff Repoter
  4. myboss8090@gmail.com : News Media : News Media
  5. admin@dhakanews.com : Stuff_Editor :
  6. rezaulkhan67@gmail.com : SUFF REPORTER : SUFF REPORTER
বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৫:৪৫ অপরাহ্ন

৮৩ দিনে দানবাক্সে পড়েছে ১ কোটি ৮ লাখ টাকা

  • Update Time : শনিবার, ১৩ এপ্রিল, ২০১৯
  • ৪১৭ Time View

কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদের দানবাক্স থেকে এবার ১ কোটি ৮ লাখ ৯ হাজার ২০০ টাকা পাওয়া গেছে। শনিবার গণনা শেষে এ টাকার হিসাব পাওয়া যায়। এবার মাত্র ৮৩ দিনে কোটি টাকার ওপরে পড়েছে দানবাক্সে। একই সঙ্গে পাওয়া গেছে স্বর্ণ, রৌপ্য ও বৈদেশিক মুদ্রা।

শনিবার সকালে কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. হাবিবুর রহমানে নেতৃত্বে সরকারি কর্মক'র্তা, মসজিদ ক'র্তৃপক্ষ ও ব্যাংকের কর্মক'র্তাদের উপস্থিতিতে পাগলা মসজিদের ছয়টি লো'হার দানবাক্স খোলা হয়।

এরপর এসব বাক্স থেকে পাওয়া নগদ টাকা বস্তায় ভরে মসজিদের দোতলায় স্তূপ করা হয়। শুরু হয় গণনা। মসজিদ কমপ্লেক্সের শতাধিক শিক্ষার্থীসহ শহরের রূপালী ব্যাংকের কর্মক'র্তারা গণনা শেষে 'বিকেল ৫টায় টাকার হিসাব পান।

রূপালী ব্যাংক কিশোরগঞ্জ শাখার সহকারী মহা-ব্যবস্থাপক মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, প্রতিবারই আমা'দের ব্যাংকের লোকজন টাকা গণনা করে ব্যাংকে জমা করেন। এবার ৮৩ দিন পর দানবাক্স খোলা হয়েছে। মোট টাকা পাওয়া গেছে ১ কোটি ৮ লাখ ৯ হাজার ২০০ টাকা।

এর আগে গত ১৯ জানুয়ারি মসজিদের পাঁচটি লো'হার দানবাক্স থেকে ১ কোটি ১৩ লাখ ৩৩ হাজার ৩৭৩ টাকা পাওয়া যায়। গত বছর শুধুমাত্র দানবাক্সে পাওয়া টাকার পরিমাণ ছিল ৫ কোটি ৩৫ লাখ ৭৬ হাজার ১৭৭ টাকা।

পাগলা মসজিদ ও ইসলামী কমপ্লেক্সের খরচ চালিয়ে অবশি'ষ্ট টাকা জমা রাখা হয় শহরের একটি ব্যাংকে। আর এর আয় থেকে জেলার বিভিন্ন মসজিদ, মা'দরাসা ও এতিমখানায় অনুদান দেয়া হয়।

শহরের হারুয়া এলাকায় নরসুন্দা নদীর তীরে ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদের অবস্থান। এখানে ইবাদত-বন্দেগি করলে বেশি সওয়াব পাওয়া যায়। রোগ-শোক বা বিপদে মসজিদে মানত করলে মনের বাসনা পূর্ণ হয়। এমন বিশ্বা'স থেকে এখানে প্রতিনিয়ত দান খয়রাত করে মানুষ। তিন মাস পর পর খোলা হয় মসজিদের দানবাক্স। প্রতিবারই টাকার পরিমাণ ছাড়িয়ে যায় কোটি টাকা। নানা শ্রেণিপেশা আর ধর্মের লোকজন এখানে আসেন মানত আ'দায় করতে।

দানবাক্স ছাড়াও প্রতিদিন নানা শ্রেণিপেশা আর ধর্মের মানুষ মানত আ'দায় করতে ছুটে আসেন পাগলা মসজিদে। নগদ টাকা ছাড়াও তারা নিয়ে আসেন চাল-ডাল-গবাদি পশুসহ বিভিন্ন সামগ্রী। দিন শেষে এসব পণ্য নিলামে 'বিক্রি করে জমা করা হয় ব্যাংকে।

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্ম'দ হাবিবুর রহমান বলেন, তিন মাস পরপর মসজিদের দানবাক্সগু'লো খোলা হয়। এবার দুই মাস ২৪ দিনপর খোলা হলো। এবার নগদ ১ কোটি ৮ লাখ ৯ হাজার ২০০ টাকা পাওয়া যায়।

তিনি আরও বলেন, মসজিদের দানবাক্স খোলা হলেই সাধারণত ১ কোটি টাকার মতো পাওয়া যায়। এবারও ১ কোটি টাকার উপরে পাওয়া গেছে। টাকাগু'লো রূপালী ব্যাংকে জমা রাখা হয়েছে। আর যে স্বর্ণালঙ্কার পাওয়া গেছে তা আগের স্বর্ণালঙ্কারের সঙ্গে যোগ করে সিন্দুকে রেখে দেয়া হয়েছে।

একইভাবে গত বছরের ১৩ জুলাই ৮০ লাখ ৪৯ হাজার ৮১ টাকা, ৩১ মা'র্চ তারিখে ৮৪ লাখ ৯২ হাজার ৪ টাকা, এবং ৬ জানুয়ারি তারিখের দানবাক্সগু'লো থেকে ১ কোটি ২৭ লাখ ৩৬ হাজার ৪৭১ টাকা পাওয়া যায়।

গত বছর শুধুমাত্র দানবাক্স থেকে নগদ ৫ কোটি ৩৫ লাখ ৭৬ হাজার ১৭৭ টাকা পাওয়া যায়। এর আগে ২০১৭ সালে দুইবারে টাকা পাওয়া যায় ২ কোটি ২২ লাখ ৩০ হাজার ২ টাকা।

জানা গেছে, কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক পদাধিকার বলে পাগলা মসজিদের সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছেন। মসজিদের আয় থেকে জেলার বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে অনুদানসহ বিভিন্ন সেবামূলক খাতে সাহায্য দেয়া হয়। বিভিন্ন জটিল রোগে আ'ক্রা'ন্ত মানুষকে চিকিৎসার জন্য মসজিদের তহবিল থেকে অর্থ সহায়তা দেয়া হয়।

পাগলা মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী জানান, মসজিদের টাকা স্থানীয় একটি ব্যাংকে জমা রাখা হয়। মসজিদ কমপ্লেক্সের আয় থেকে জেলার বিভিন্ন মসজিদ, মা'দরাসা, এতিমখানাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে অনুদান দেয়া হয়। অ'সুস্থ রোগীদের চিকিৎসার জন্য মসজিদের ফান্ড থেকে অনুদান দেয়া হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Cialis
© All rights reserved © 2020 by Dhakanews.com
Theme Customized By BreakingNews