1. azimazim0003@gmail.com : adnan sany : adnan sany
  2. bullumm12@gmail.com : Suff Reporter : Suff Reporter
  3. bddhakanews@gmail.com : Stuff Repoter : Stuff Repoter
  4. myboss8090@gmail.com : News Media : News Media
  5. admin@dhakanews.com : Stuff_Editor :
  6. rezaulkhan67@gmail.com : SUFF REPORTER : SUFF REPORTER
মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৭:২৭ পূর্বাহ্ন

কয়েক গুণ বেড়েছে ইফতার-পরবর্তী হার্ট অ্যাটাক, এ নিয়ে কিছু কথা

  • Update Time : শুক্রবার, ৮ এপ্রিল, ২০২২
  • ৩০০ Time View

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রোজার সময় ‘ইফতার-পরবর্তী হার্ট অ্যাটাক’ নিয়ে বেশ শোরগোল শুরু হয়েছে। বলা হচ্ছে, ইফতারের পর দেশে হার্ট অ্যাটাক অনেক বেড়ে গেছে। কিন্তু কোথায় কখন কিভাবে বেড়েছে- সেটা নিয়ে আর কেউ লিখছেন না। শুধু শেয়ার করে যাচ্ছেন ইফতার-পরবর্তী হার্ট অ্যাটাক কয়েক গু'ণ বেড়ে গেছে। মাত্র ৪/৫ দিন হলো রোজা শুরু হয়েছে। তাই একথা এখনই বলা যাব'ে না যে, রোজায় ইফতার-পরবর্তী হার্ট অ্যাটাক দেশে অনেক বেড়ে গেছে। এটাও ঠিক যে সবাই ভালো উদ্দেশ্য নিয়েই এ বি'ষয়টি শেয়ার করছেন। কিন্তু সবাই যেভাবে শেয়ার করছেন, এতে একটা প্যানিক সৃ'ষ্টি হবে।

কয়েক গু'ণ বেড়েছে ইফতার-পরবর্তী হার্ট অ্যাটাক, এ নিয়ে কিছু কথা
ছবি সংগৃহীত
অন্যদিকে, এটাও স্বীকার করতে হবে যে, আমা'দের দেশে রোজার সময়ের যে খাদ্য তালিকা অনুসরণ করা হয়- তা কোন ভাবেই স্বাস্থ্যসম্মত নয়। বিশেষ করে ভাজাপোড়া, হঠাৎ করে ইফতারের সময় অতিরিক্ত খাদ্য গ্রহণ স্বাস্থ্যের জন্য অনুকূল নয়। রে'ড মিট- যেমন গরু, খাসী ও হাঁসের মাংস অতিরিক্ত কোলেস্টেরল বহন করে বিধায় হার্টের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। বিশেষ করে ইতোমধ্যেই যাঁরা হৃদরোগে আ'ক্রা'ন্ত হয়েছেন তাঁরা অবশ্যই অতিরিক্ত সতর্কতা অবলম্বন করবেন।

রোজার সময়ে মানুষের দৈনন্দিন কার্যকলাপের পরিবর্তন ঘটে। স্বাভা'বিক খাদ্যাভ্যাস, ব্যায়াম, ওষুধ গ্রহণের সময়সূচী, ঘু'মের সময় ও পরিমাণ পরিবর্তিত হয়। একজন সুস্থ স্বাভা'বিক পূর্ণবয়স্ক মানুষ যেভাবে এই পরিবর্তনের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে পারে তা একজন অ'সুস্থ মানুষের পক্ষে সম্ভব হয়ে ওঠে না। তাই এ বি'ষয়ে কিছু বিশেষ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা দরকার।

প্রায়শই দেখা যায়, হৃদরোগে আ'ক্রা'ন্ত রোগীদের অনেকের ডায়াবেটিস, উচ্চ র'ক্তচাপ, অ্যাজমা ও কিডনির অক্ষ'মতা পাশাপাশি অবস্থান করে। ফলে রোজার সময়ে খাদ্যাভ্যাস ও ওষুধপত্র নতুন করে সময়োপযোগী করে নিতে হবে।

১। যাঁদের হার্টের পাম্পিং ক্ষ'মতা কম ( LVEF ২৫% এর নীচে) তাঁদের রোজা না রাখাই ভাল।

২। যাঁদের বয়স ৭০ এর উপরে , হার্ট দুর্বল, ডায়াবেটিস আছে, কিডনির সমস্যা আছে- তাঁদেরও রোজা না রাখাই ভাল।

৩। যে সব হৃদরোগীর হার্টের পাম্পিং ক্ষ'মতা স্বাভা'বিক তাঁরা অন্য সবার মত রোজা রাখতে পারবেন।

৪। হৃদরোগীদের সাধারণত কয়েকটি ওষুধ নিয়মিত খেয়ে যেতে হয়। বেশিরভাগ ওষুধ দিনে একবার বা দু’বার খেলেই হয়। যেসব ওষুধ দিনে একবার খেলে চলে রোজার সময় সেগু'লো রাতের খাবারের সময় নিলেই চলবে। যেসব ওষুধ দিনে দু’বার খেতে হবে সেগু'লো ইফতার ও সেহরির সময় খেলে চলবে। খেয়াল রাখতে হবে যেন দুই ডোজের মধ্যবর্তী সময়টি সংক্ষি'প্ত না হয়। বিশেষ করে প্রেসারের ওষুধ পর্যা'প্ত ফারাক (space) দিয়ে সেবন করতে হবে। রোজার সময়ে খাদ্য ও পানির পরিমাণ কমে যাওয়ায় প্রেসার কমে যেতে পারে। সে ক্ষেত্রে ডাক্তারের সঙ্গে পরামর'্শক্রমে মাত্রা কমানো যেতে পারে। হৃদরোগের কিছু কিছু ওষুধ (যেমন Nitrate) সকালে ও 'বিকেলে খেতে হয়, রোজায় সেগু'লো সেহরি ও ইফতারের সময়ে সমন্বয় করা যায়। কিছু ওষুধ দিনে তিনবার নিতে হয় (যেমন Diltiazem), সেগু'লো স্লো রিলিজ ফর্মে দিনে একবার বা দু’বারে খাওয়া যায়।

৫। হৃদরোগীদের মধ্যে যাঁদের ডায়াবেটিস আছে তাঁদেরকে বিশেষ সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। দিনের দীর্ঘ সময় খাদ্য ও পানীয় গ্রহণ না করায় র'ক্তে সুগারের পরিমাণ মা'রাত্মকভাবে কমে যেতে পারে। হঠাৎ জ্ঞান হারিয়ে ফেললে বা মাথা ঝিমঝিম করলে, বুক ধড়ফড় করে প্রচুর ঘাম দিলে সুগারের মাত্রা কমে যেতে পারে বলে সন্দে'হ করতে হবে। এবং তৎক্ষণাৎ সুগার পরীক্ষা করা সম্ভব হলে করতে হবে। পরীক্ষা করা সম্ভব না হলে হাতের কাছে চিনি জাতীয় যা কিছু পাওয়া যায় দ্রুত খেয়ে রোজা ভেঙে ফেলতে হবে। পরবর্তীতে ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর'্শ করে ওষুধের মাত্রা ঠিক করতে হবে। তবে রোজার সময় যেসব ওষুধ দ্রুত র'ক্তের সুগার কমায় তা এড়িয়ে চলা উত্তম। ইনসুলিন এর ব্যাপারে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। ইনসুলিনের মেজর অংশটি ইফতারের সময় নিলে ভাল, আর স্বল্প মাত্রাটি সেহরির সময় নিতে হবে যাতে দিনের দীর্ঘ সময়ে সুগার কমে না যায়।

৬। হৃদরোগীদের মধ্যে যাঁদের অ্যাজমা আছে তাদের মুখের ওষুধ গ্রহণে তেমন সমস্যা হয় না। সেহরি ইফতারের সময় নিলেই হবে। তবে যাঁদের ঘণ ঘন ইনহ্যালার (যেমন Azmasol Inhaler বা Nebulizer) নিতে হয় তাঁরা সেটি নিতে পারবেন। কারণ ইনহ্যালার ফুসফুসে বাতাসের সাথে টেনে নিতে হয়। পেটে যাব'ার দরকার পড়ে না। আর যেসব ইনহ্যালার (যেমন Bexitrol Inhaler) দিনে দু’বার নিয়মিত নিতে হয় সেগু'লো সেহরি এবং ইফতারের সময় নিলেই চলবে।

খাদ্য বৈশি'ষ্ট্য :

বিজ্ঞাপন
৭। তৈলাক্ত খাদ্য, ভাজাপোড়া (যেমন পিয়াজু, বেগু'নী, কাবাব, পরাটা, হালিম ই'ত্যাদি) এড়িয়ে চলা ভাল।

৮। নরম খাবার যেমন চিড়া ভেজানো, কাঁচা ছোলা বা তেলমুক্ত সে'দ্ধ ছোলা, দু’টি খেজুর, কলা, দই এসব দিয়ে ইফতার করা যেতে পারে। পর্যা'প্ত পরিমাণে পানি, লেবুর শরবত, রসালো ফল, ডাবের পানি ও কম'লার রস ই'ত্যাদি শরীরের জন্য ভাল। ইফতার পরিমিত পরিমাণে 'হতে হবে। হঠাৎ অতিরিক্ত ইফতার করলে হিতে বিপরীত 'হতে পারে। পর্যা'প্ত পরিমাণে পানি বা পানীয় গ্রহণ করতে হবে যাতে দিনের পানিশূন্যতা পুষিয়ে দেয়া যায়।

লেখক : ডা. মাহবুবর রহমান, সিনিয়র কার্ডিওলজিস্ট ও সিসিইউ ইনচার্জ, ল্যাব'এইড কার্ডিয়াক হাসপাতাল, ধানমণ্ডি, ঢাকা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020 by Dhakanews.com
Theme Customized By BreakingNews